এখনো আড়ালে নয়ন বন্ডের কারিগররা

225

আলোকিত সকাল ডেস্ক

বরগুনায় প্রকাশ্য দিবালোকে রিফাত শরীফকে কুপিয়ে হত্যার ৮ দিন পেরিয়ে গেলেও এখনো ধরাছোঁয়ার বাইরে হত্যাকারীদের আশ্রয়-প্রশ্রয়দাতা বা কারিগররা। সরাসরি হত্যায় জড়িত ও মামলার প্রধান আসামি সাব্বির আহমেদ নয়ন ওরফে নয়ন বন্ড গত মঙ্গলবার আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সঙ্গে ‘ক্রসফায়ার’-এ নিহত হয়েছে

মামলার ২নং আসামি রিফাত ফরাজীকেও পুলিশ ইতোমধ্যে গ্রেফতার করে রিমান্ডে নিয়েছে। এ মামলায় এখন পর্যন্ত এজাহারভুক্ত ও সন্দেহভাজন মোট ১২ জনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা মামলার আসামি এবং সন্দেহভাজন অভিযুক্তদের গ্রেফতারে সফলতা দেখালেও এদের গডফাদার কিংবা কারিগরদের আটকে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা এখনো আলোর মুখ দেখাতে পারেনি। নয়ন বন্ডরা যে এক দিনে নয়ন বন্ড হয়ে ওঠেনি তা গত ২৭ জুন রিফাত শরীফের হত্যাকাণ্ডের পরই বিভিন্ন মহল থেকে বলা হচ্ছিল।

দেশে সর্বোচ্চ আদালত হাইকোর্টও বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে বলেন, এক দিনে এই নয়ন বন্ডরা তৈরি হয় না। কেউ না কেউ তাদের পৃষ্ঠপোষকতা করে থাকে। কেউ না কেউ লালন-পালন করে ক্রিমিনাল বানায়।

প্রভাবশালী আওয়ামী লীগ নেতা তোফায়েল আহমেদও বলেছেন, নয়ন বন্ড এক দিনে তৈরি হয়নি। রাজনৈতিক আশ্রয়-প্রশ্রয় না পেলে নয়ন বন্ডরা তৈরি হতে পারে না। আর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেছেন, নয়ন বন্ড কীভাবে তৈরি হয়েছে সেটি তদন্ত চলছে। আমরাও বের করতে চাই, কারা তাকে এমন বানিয়েছিল। বিষয়টি দেখা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্ট একাধিক সূত্রে জানা গেছে, রিফাত শরীফকে হত্যায় যে দুজন সরাসরি অংশ নেয় তাদের একজন নয়ন বন্ড এবং অন্যজন রিফাত ফরাজী। এই দুই ঘাতক বরগুনার দুই প্রভাবশালী রাজনৈতিক নেতার শক্তিকে কাজে লাগিয়ে গড়ে তুলেছিল ‘০০৭’ নামে সন্ত্রাসী গ্রুপ। যে গ্রুপের প্রধান ছিল নয়ন বন্ড আর সেকেন্ড ইন কমান্ড ছিল রিফাত ফরাজী। নয়ন বন্ড স্থানীয় এক রাজনৈতিক নেতার মাদক ব্যবসা দেখাশোনা করত বলেও অভিযোগ আছে। রিফাত ফরাজী হচ্ছে জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান দেলোয়ার হোসেনের আত্মীয়।

স্থানীয়দের অভিযোগ, ক্ষমতাসীন দলের দুই নেতার ঘনিষ্ঠ হওয়ায় স্থানীয় থানা পুলিশের কারও কারও সঙ্গে নয়ন বন্ডের ছিল গভীর সম্পর্ক। রাজনীতিক ও প্রশাসনিক ছত্রছায়ায় নয়ন বন্ডের নেতৃত্বে গঠিত গ্রুপ বরগুনা শহরে নানা ছিনতাই ও নারীদের প্রতারণার ফাঁদে আটকে অপকর্ম চালাত। বিভিন্ন মেসে প্রায়ই নয়ন বন্ড ও রিফাত ফরাজীর বাহিনীর সদস্যরা হানা দিয়ে মোবাইল ফোনসেট ও নগদ অর্থ হাতিয়ে নিত। অনেক মেসে কৌশলে তাদের ভাড়া করা নারী ঢুকিয়ে দিয়ে প্রতারণার ফাঁদ পাতত।

তাছাড়া নয়ন বন্ডদের শহরে নিজের বাসাটি ছিল মাদকসেবীদের আড্ডাখানা। মাদক ব্যবসা, চোরাইপথে মোটরসাইকেলের ব্যবসা, চাঁদাবাজিসহ নানা অপরাধে জড়িয়ে পড়ে নয়ন বন্ড। ২০১৭ সালে হেরোইন, ইয়াবাসহ ধরা পড়ে সে। নয়ন বন্ডের মা অভিযোগ করেন- আমাদের বাসায় মাদকের আড্ডা বসাতো। মাঝে মধ্যে প্রশাসনের লোকও আসতো। মাঝেমধ্যে মেয়েদেরও নিয়ে আসতো। আমি বাধা দিলে নয়ন আমাকে মারধর করত। একবার আমাকে তিন দিন বাসায় উঠতে দেয়নি নয়ন। নয়নকে যারা খারাপ বানিয়েছে আমি তাদের বিচার চাই।

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা পরিষদ সদস্য ও সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বরিশালে একটি অনুষ্ঠানে ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেছেন, নয়ন বন্ড এক দিনে তৈরি হয়নি। রাজনৈতিক আশ্রয়-প্রশ্রয় না পেলে নয়ন বন্ডরা তৈরি হতে পারে না। প্রধানমন্ত্রী বরগুনার ঘটনাটি অবগত রয়েছেন। প্রধানমন্ত্রী দেশে আসছেন। নয়ন বন্ডের সঙ্গে রাজনৈতিক সংশ্লিষ্টতার প্রমাণ পেলে প্রধানমন্ত্রী এ ব্যাপারে সিদ্ধান্ত নেবেন।

এ বিষয়ে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল বলেন, রিফাত শরীফকে প্রকাশ্য দিবালোকে কুপিয়ে হত্যার মূলহোতা সাব্বির আহমেদ নয়ন ওরফে নয়ন বন্ডকে কারা তৈরি করছে, তা খুঁজে বের করতে চান।

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আরও বলেন, আমরা কেউই বিচারবহির্ভূত হত্যাকাণ্ড সমর্থন করি না। তবে নয়নের ক্ষেত্রে যেটি হয়েছে সেটি ছিল আত্মরক্ষার স্বার্থে। নয়ন বন্ড এক দিনে তৈরি হয়নি। সে কীভাবে তৈরি হয়েছে সেটিও তদন্ত চলছে। আমরাও বের করতে চাই, কারা তাকে এমন বানিয়েছিল।

আস/এসআইসু

Facebook Comments