গাইবান্ধা জেলা পুলিশের উদ্যোগে দিনব্যাপি চরাঞ্চলে ত্রাণ বিতরণ

162

আল কাদরী কিবরীয়া সবুজ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি

জাতির জনকের সুযোগ্য কন্যা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর ঘোষনা”বন্যাক্রান্ত ক্ষুধার্ত একজন মানুষকেও না খেয়ে মরতে দিব না” মোতাবেক বাংলাদেশ পুলিশের ইতিহাসখ্যাত আইজিপি ডঃ মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী বিপিএম মহোদয় এর নির্দেশে গাইবান্ধা জেলার সুযোগ্য ও মানবিক পুলিশ সুপার প্রকৌশলী জনাব আবদুল মান্নান মিয়া বিপিএম মহোদয় জেলা পুলিশের উর্ধতন কর্মকর্তাদের সাথে নিয়ে গাইবান্ধা সদর থানার মোল্লারচর ও ফুলছড়ি গজারিয়া এলাকা সহ ৫টি প্রত্যন্ত চরাঞ্চলের কমপক্ষে ৭৫০ জন বানভাসি অসহায় ক্ষুধার্ত মানুষের মধ্যে আজ ২০ জুলাই ২০১৯ খ্রিঃ তারিখ সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত ত্রাণ বিতরণ করেন।পুলিশ সুপার মহোদয় গাইবান্ধার প্রত্যন্ত চরাঞ্চল যেখানে আজকের পূর্ব পর্যন্ত ত্রাণ বিতরণ হয় নাই এমন দূরবর্তী চরের বানের পানিতে বাড়ি-ঘর ডোবা ক্ষুধার্ত হত- দরিদ্র কমপক্ষে ৭৫০ জন মানুষের প্রত্যেককে ১০ কেজি চাল, ১কেজি ডাল,১ লিটার সোয়াবিন তৈল,০২টি ম্যাচ ও ০২টি মোমবাতি সম্বলিত ত্রাণের ব্যাগ তুলে দেন।

ত্রাণ বিতরণে অতিরিক্ত পুলিশ সুপার,( এ,সার্কেল) জনাব মইনুল হক,অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (বি,সার্কেল), জনাব আব্দুল আউয়াল, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার সদর, জনাব আনোয়ার হোসেন, ওসি-ডিবি জনাব মোঃ মজিবুর রহমান (পিপিএম) ওসি সদর জনাব শাহরিয়ার খান, টি.আই জনাব আতাউর রহমান, ডি.আই ও- ১ জনাব মোঃ আবদুল লতিফ পিপিএম সহ জেলা পুলিশের অন্যান্য কর্মকর্তা উপস্থিত থেকে ত্রাণ বিতরণে সহায়তা করেন।

গাইবান্ধায় স্মরনকালের ভয়াবহ বন্যায় পানিতে আটকেপড়া চরাঞ্চলের ক্ষুধার্ত অসহায় বানভাসী এই মানুষগুলো পুলিশের এই ত্রাণ পাইয়া আবেগ্লাপুত হইয়া পুলিশ সুপারসহ জেলা পুলিশের প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন। কারন এই ১০ কেজি চালেই হয়ত তাদের কয়েকদিনের ক্ষুধা মিটবে। এরই মধ্যে হয়ত অন্য কেও আবারো এই রকম ত্রাণ নিয়ে হাজির হবে। এসময় স্থানীয় চেয়ারম্যানগণ সহ অন্যান্য জনপ্রতিনিধিগন ও গনমাধ্যমের প্রতিনিধি বৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। জেলা পুলিশের এই ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত থাকবে।

আস/এসআইসু

Facebook Comments