চট্টগ্রামে বৈদু্যতিক খুঁটিতে তারের জঞ্জাল

343

আলোকিত সকাল ডেস্ক

চট্টগ্রাম নগরের বিভিন্ন সড়ক কিংবা গলিপথে ওপরের দিকে তাকালেই চোখে পড়ে বৈদু্যতিক খুঁটিতে তারের জঞ্জাল। এতে প্রতিনিয়ত ঘটছে ওভারলোডিং, শর্টসার্কিট ও আর্থিং।

বিভিন্ন সংস্থার এসব তার একদিকে নগরবাসীকে হুমকির মুখে ফেলছে, অন্যদিকে নগরের সৌন্দর্যহানি হচ্ছে। ইন্টারনেট ও স্যাটেলাইট ক্যাবল অপারেটরদের তারের ভারে বৈদু্যতিক খুঁটিগুলো বিপজ্জনক হয়ে পড়েছে।

ফায়ার সার্ভিসের তথ্যমতে, অগ্নি দুর্ঘটনার ৭৫ শতাংশই বৈদু্যতিক ব্যবস্থায় নানা সমস্যার কারণে হয়ে থাকে। তবুও সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের এসব তার সরানোর ব্যাপারে কোনো উদ্যোগ নেই।

নগরে ২০১৫ সাল থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত অগ্নিকান্ডের বেশিরভাগই বৈদু্যতিক গোলযোগের কারণে ঘটেছে। ২০১৫ সালে ২০৬টি অগ্নিকান্ডে মারা গেছে ১০ জন। নষ্ট হয় ৪০ কোটি টাকার সম্পদ। ২০১৬ সালের ৫০০টির মতো অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটেছে। ২০১৭ সালে সাড়ে ৪শ’ ও ২০১৮ সালে প্রায় ৪শ’টি অগ্নিকান্ডের ঘটনা ঘটে।

জনগরের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, বৈদু্যতিক খুঁটিগুলোতে তারের জঞ্জাল ঝুলছে। নিউমার্কেট, রেয়াজউদ্দীন বাজার, আগ্রাবাদ, চকবাজার, মুরাদপুর, বহদ্দারহাট, ষোলশহর ২ নম্বর গেট, টাইগারপাস, জামাল খান, আন্দরকিলস্নাসহ পুরো নগরজুড়ে চিত্র একই। বিভিন্ন সময়ে এসব তার ছিঁড়ে মৃতু্যর ঘটনা ঘটলেও কর্তৃপক্ষের টনক নড়ছে না। সেবা সংস্থাগুলোর দায়িত্বহীনতার কারণে নগরের ৭০ লাখ মানুষ ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে।

বিদু্যৎ উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, ৬০ বর্গমাইলের নগরে পিডিবির ৩ হাজার কিলোমিটার বিদু্যৎ সংযোগ আছে। বড় ধরনের অগ্নিকান্ডের ঘটনা রোধে সম্প্রতি ঝুলে থাকা এসব তার সরানোর নির্দেশনা দেয় আদালত। পরে বিদু্যৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিউবো) সব তারই মাটির নিচে নেওয়ার সিদ্ধান্ত নেয়। বিউবো চট্টগ্রাম দক্ষিণাঞ্চলও মাটির নিচে তার নেয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছে।

চট্টগ্রাম বিদু্যৎ উন্নয়ন বোর্ড (বিতরণ) দক্ষিণাঞ্চল প্রধান প্রকৌশলী প্রবীর কুমার সেন বলেন, বিদু্যতের খুঁটিতে ইন্টারনেট ও স্যাটেলাইট ক্যাবল অপারেটরদের তার টাঙিয়ে এ জঞ্জাল সৃষ্টি করা হয়েছে। আমরা বিভিন্ন সময় সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীদের তারগুলো সরিয়ে নিতে বলেছি, কিন্তু তা মানা হয়নি।

নগরের কাজির দেউড়ী এলাকার বাসিন্দা মো. ইমরান জানান, গত ডিসেম্বরে বিজয়মেলা চলাকালে পুলিশ বক্সের পাশে সড়কে বৈদু্যতিক তারে আগুন লাগার ঘটনা ঘটে। লোকজন দ্রম্নত আগুন না নেভালে সেদিন বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারত। মার্কেট ও বাসার সামনে তারের জঞ্জাল ঝুলছে। ভয়ে পথ চলতে হয় পথচারীদের।

নগর পরিকল্পনাবিদরা বলছেন, মাটির নিচে বিদু্যতের তার নেয়া হলে অগ্নিকান্ডের ঘটনা কমে যাবে। প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও বর্ষায় তার ছিঁড়ে পড়ার ভয়ও থাকবে না। নান্দনিক শহর গড়ে তুলতে তারের জঞ্জাল সরানো জরুরি।

প্রকৌশলী প্রবীর কুমার সেন বলেন, প্রাথমিকভাবে চট্টগ্রাম শহরে ৫০০ কিলোমিটার এলাকাজুড়ে মাটির নিচে নেয়া হবে বৈদু্যতিক তার। পরে চট্টগ্রাম বিভাগের বিভিন্ন জেলা শহর ও উপজেলা শহরেও এ প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে।

আস/এসআইসু

Facebook Comments