চাকরির প্রলোভনে এনে তরুণীকে আটকে দেহব্যবসা

221

আলোকিত সকাল ডেস্ক

চাকরির প্রলোভন দেখিয়ে এক তরুণীকে (১৬) নারায়ণগঞ্জের আদমজী ইপিজেডের সামনে থেকে অপহরণ করে ধর্ষণ ও দেহব্যবসায় বাধ্য করা হয়েছে। এ ঘটনায় ১জনকে আটক করেছে পুলিশ।

অপহরণের ৯ দিন পর গত বৃহস্পতিবার রাতে ওই তরুণীকে রাজধানীর মুগদা এলাকা থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। এ সময় ঘটনার মূলহোতা হেলেনা বেগম নামে এক নারীকে আটক করা হয়।

রাতেই তরুণীর ভগ্নিপতি আলমগীর হোসেন বাদী হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় ৮ জনকে আসামি করে মামলা করেন।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা সিদ্ধিরগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) শামীম আহমেদ জানান, ভিকটিমকে অপহরণ করে ধর্ষণ ও পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করার অভিযোগে ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। প্রধান আসামিকে গ্রেপ্তার করে ৭ দিনের রিমান্ড চেয়ে আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।

মামলার সূত্রমতে, গত ২৫ জুন সকাল ৭টার দিকে আদমজী ইপিজেডের সামনে থেকে গার্মেন্টসে চাকরি দেয়ার কথা বলে ফুসলিয়ে ওই তরুণীকে অপহরণ করে মনির হোসেন জামাল।

এ ঘটনায় ২৮ জুন সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় একটি জিডি করা হয়। বৃহস্পতিবার রাতে রাজধানী ঢাকার মুগদা থানার মদিনাবাগ এলাকার ৩৮/ক আবদুল জব্বারের বাড়ির ভাড়াটিয়া হেলেনা বেগমের বাসা থেকে অপহৃত তরুণীকে উদ্ধার করা হয়।

উদ্ধার তরুণী পুলিশকে জানায়, তাকে অপহরণ করার পর হেলেনার বাসায় আটক রেখে প্রথমে মনির তাকে ধর্ষণ করে। পরে আরো কয়েকজন দফায় দফায় ধর্ষণ করে। হেলেনা একজন দেহব্যবসায়ী। মনির তরুণীকে দেহব্যবসায়ী হেলেনার কাছে রেখে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করিয়েছে।

এ ঘটনায় পিরোজপুর জেলার মঠবাড়ীয়া থানার উত্তর মিঠাখালী এলাকার বাবুল সরদারের স্ত্রী হেলেনা বেগম, বরগুনা জেলা সদরের নলটোনা ইউপি এলাকার ইউসুফের ছেলে মনির হোসেন জামাল এবং তাদের সহযোগী নানা কারফু, পনির, নাঈম, ইমন, মাজহারুল ও দেবাশীষকে আসামি করে ওই তরুণীর ভগ্নিপতি আলমগীর হোসেন বাদী হয়ে সিদ্ধিরগঞ্জ থানায় মামলা করেন।

আস/এসআইসু

Facebook Comments