ছয় মাসে ধর্ষণের শিকার ৪৯৬ শিশু

205

আলোকিত সকাল ডেস্ক

বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরাম জানিয়েছে, গত বছরের তুলনায় এ বছর ৪১ শতাংশের বেশি শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। কেবল গত ছয় মাসেই ৪৯৬ শিশু ধর্ষণের শিকার। আর চলতি মাসের প্রথম সাত দিনে ধর্ষিত হয়েছে ৪১ শিশু। ধর্ষণের পর খুন করা হয়েছে ২৩ জনকে। আতংকের বিষয় হচ্ছে, এসবই হয়েছে নিকটাত্মীয়, প্রতিবেশী বা পরিচিত জনের মাধ্যমে।

মানবাধিকার ও সমাজ বিশ্লেষকরা জানিয়েছেন, মূল্যবোধের চরম অবক্ষয়, ধর্মীয় শিক্ষা থেকে দূরে সরে যাওয়া এবং উপযুক্ত শাস্তি না হওয়ায় পরিস্থিতি ভয়াবহ দিকে যাচ্ছে।

এই সমাজের এখনকার বাস্তবতা সায়মার বাবার অসহায়ত্ব। গত শুক্রবার রাজধানীর বনগ্রামে সাত বছরের শিশু সামিয়া আফরিন সায়মাকে ধর্ষণের পর হত্যার ঘটনায় পুরো দেশ আরেকবার কেঁপে ওঠে।

একদিন আগে বৃহস্পতিবার নারায়ণগঞ্জের ‘বাইতুল হুদা ক্যাডেট মাদ্রাসা’র প্রতিষ্ঠাতা, পরিচালক ও অধ্যক্ষ আল আমিনকে ধর্ষণের অভিযোগে গ্রেফতার করে ‌র‍্যাব।অনুসন্ধান বলছে, দেড় বছরে তিনি ১০ থেকে ১২ জন ছাত্রীকে ধর্ষণ করেছেন।

দেশের জাতীয় দৈনিক পত্রিকা পর্যালোচনা করে ‘বাংলাদেশ শিশু অধিকার ফোরাম’ বলছে- এ বছরের জানুয়ারি থেকে জুন পর্যন্ত ৪৯৬ শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এদের মধ্যে ৫৩ জন আবার গণধর্ষণের শিকার। প্রতিবন্ধী ২৭ জন।

কেবল এপ্রিল ও মে এই দুই মাসে ধর্ষণ সংখ্যা ২৪১। ধর্ষণ চেষ্টা হয়েছে ৭৪ জনকে। ধর্ষণের পর হত্যা করা হয়েছে ২৩ জনকে। সবচেয়ে ভয়াবহ হলো চলতি জুলাই মাসের প্রথম সাত দিনেই ৪১ শিশু ধর্ষণের শিকার হয়েছে। এর মধ্যে ছয়টি গণধর্ষণ এবং ২৩ জনকে পরে খুন করা হয়েছে।

সংস্থাটির সভাপতি আব্দুস শহিদ মাহমুদ এই পরিসংখ্যানকে উদ্বেগজনক মন্তব্য করে বলেন, বেশির ভাগ শিশুই নিকটজনের হাতে নির্যাতিত হচ্ছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষক অধ্যাপক ড. নেহাল করিম বলেন, এমন মানসিক বিকৃতির একক কোনো কারণ নেই তবে এজন্য প্রধানত পর্নগ্রাফির অবাধ বিস্তার ও বিকৃত যৌনাকাঙ্ক্ষাই দায়ী।

আস/এসআইসু

Facebook Comments