দুই আসামির দায় স্বীকার, তিন জনের রিমান্ড মঞ্জুর

358

আলোকিত সকাল ডেস্ক

বরগুনার চাঞ্চল্যকর রিফাত শরীফকে হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দিয়েছেন গ্রেফতার দুই আসামি। তারা হলেন- মামলার এজাহারভুক্ত আসামি অলি ও তানভীর।

সোমবার (০১ জুলাই) বরগুনার সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক মোহাম্মদ সিরাজুল ইসলাম গাজী তাদের জবানবন্দি রেকর্ড করেন।

এদিকে রিফাত হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার হওয়া আরো তিন জনকে অধিকরত জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।

তারা হলেন- নাজমুল হাসান,সাগর ও সাইমুন। এদের মধ্যে নাজমুল হাসানকে ইতিপূর্বে তিন দিনের জন্য রিমান্ডে নেয়া হয়েছিলো।

ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে রিফাত হত্যা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা বরগুনা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) হুমায়ুন কবির বলেন- এজাহারভুক্ত আসামি অলি ও হামলার ভিডিও ফুটেজ দেখে তানভীরকে গ্রেফতার করে আদালতে সোপর্দ করা হয়।

তারা দু’জন স্বেচ্ছায় রিফাত শরীফ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সরাসরিভাবে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে আদালতে স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি দিয়েছেন।

পুলিশ পরিদর্শক বলেন- হত্যাকাণ্ডে জড়িত সন্দেহে গ্রেফতার হওয়া অপর তিন আসামিকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আদালতে ৫ দিনের রিমান্ড আবেদন করা হলে আদালত তা মঞ্জুর করেন।

তিনি বলেন, মামলার এজাহারভুক্ত ১২ নম্বর আসামি টিকটক হৃদয়কে গ্রেফতার করা হয়েছে। তবে তাকে এখন পর্যন্ত বরগুনা জেলা পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়নি। তাই তাকে আদালতে সোপর্দ করা সম্ভব হয়নি। মঙ্গলবার তাকে আদালতে সোপর্দ করা হতে পারে বলে জানিয়েছেন তিনি।

উল্লেখ্য, গত ২৬ জুন সকাল সাড়ে ১০টায় বরগুনা সরকারি কলেজের সামনে স্ত্রী আয়শা সিদ্দিকা মিন্নি’র সামনে প্রকাশ্য দিবালকে রিফাত শরীফকে কুপিয়ে জখম করে নয়ন বন্ড, রিফাত ফরাজী, রিশান ফরাজীসহ তাদের সন্ত্রাসী বাহিনী।

পরে তাকে দুপুর ১টার দিকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালে ভর্তি করা হলে বিকাল সোয়া ৪টায় অপারেশন টেবিলে তার মৃত্যু হয়। কুপিয়ে জখমের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ছড়িয়ে পড়লে দেশব্যাপী তোলপাড় সৃষ্টি হয়।

রিফাতের খুনিদের ধরতে পুরস্কার ঘোষণা

রিফাত শরীফ হত্যা মামলার প্রধান আসামিদের ধরতে পুরস্কার ঘোষণা করেছে বরগুনায় জেলা ছাত্রলীগ। সোমবার (০১ জুন) বেলা ১২টার দিকে বরগুনা প্রেসক্লাবের সামনে রিফাত হত্যার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও প্রতিবাদ সমাবেশে এ পুরস্কার ঘোষণা করেন জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি জোবায়ের আদনান অনিক।

তিনি বলেন, রিফাত হত্যাকাণ্ডের পাঁচদিন অতিবাহিত হয়েছে। কিন্তু এখনো প্রধান আসামি নয়ন বন্ড বা রিফাত ফরাজীকে গ্রেফতার করতে পারেনি পুলিশ। দেশবাসীর ন্যায় নয়ন ও রিফতকে গ্রেফতারের দাবি বরগুনা ছাত্রলীগেরও। তাই তাদের গ্রেফতারে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীকে সহযোগিতার জন্য ছাত্রলীগ পুরস্কার ঘোষণা করেছে।

রিফাত হত্যার ঘটনায় ২৬ জুন রাতেই রিফাতের বাবা ১২ জনের নাম উল্লেখ করে একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। তারা হলেন- সাব্বির আহমেদ নয়ন শরিফ ওরফে নয়ন বন্ড (২৫), রিফাত ফরাজী (২৩), রিশান ফরাজী (২০), চন্দন (২১), মুসা, রাব্বি আকন (১৯), মোহাইমিনুল ইসলাম সিফাত (১৯), রায়হান (১৯), মো. হাসান (১৯), রিফাত (২০), অলি (২২) ও টিকটক হৃদয় (২১)।

এদের মধ্যে এজাহারনামীয় আসামি চন্দন, মো. হাসান, অলি ও টিকটক হৃদয় এবং জড়িত সন্দেহে তানভীর, নাজমুল হাসান, মো. সাগর ও কামরুল হাসান সাইমুনকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

আস/এসআইসু

Facebook Comments