দুর্ঘটনা রোধে ঢাকা-পাটুরিয়া সড়কে হবে পৃথক লেন

209

আলোকিত সকাল ডেস্ক

সড়ক দুর্ঘটনা রোধে লোকাল যানবাহনের জন্য পৃথক লেন নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এর অংশ হিসেবে ‘ঢাকা (মিরপুর)-উথুলী-পাটুরিয়া জাতীয় মহাসড়কের (এন-৫) নবীনগর হতে নয়াহাট ও পাটুরিয়া ঘাট এলাকা প্রশস্তকরণসহ আমিনবাজার থেকে পাটুরিয়া ঘাট পর্যন্ত বিভিন্ন বাসস্ট্যান্ড এলাকা ডেডিকেটেড সার্ভিস লেন ও বাস-বে নির্মাণ নামের একটি প্রকল্প হাতে নিতে যাচ্ছে সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়।

এটি বাস্তবায়িত হলে মহাসড়কের বাজার এলাকাগুলোর যানজট নিরসন ও দুর্ঘটনাপ্রবণ স্থানগুলো সড়ক নিরাপত্তা উন্নয়ন, পণ্যবাহী ট্রাকগুলো সুশৃঙ্খলভাবে পারাপার পার্কিং নিশ্চিত করা যাবে।

এটিসহ মোট ১৪টি উন্নয়ন প্রকল্প উপস্থাপন করা হচ্ছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায়। আজ মঙ্গলবার রাজধানীর শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠেয় বৈঠকে সভাপতিত্ব করবেন প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনা।

অন্যদিকে সদ্যসমাপ্ত ২০১৮-১৯ অর্থবছরে সংশোধিত বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচির (আরএডিপি) বাস্তবায়নের হার দাঁড়িয়েছে ৯৪ দশমিক ৩২ শতাংশ, যা তার আগে ২০১৭-১৮ অর্থবছরে ছিল ৯৪ দশমিক ০২ শতাংশ।

আরএডিপি বাস্তবায়নে এ চিত্রটিও উপস্থাপন করা হতে পারে প্রধানমন্ত্রীর সামনে। অন্যদিকে গত কয়েক অর্থবছরে সংশোধিত এডিপি বাস্তবায়নের হার হচ্ছে, ২০১৬-১৭ অর্থবছরে বাস্তবায়িত হয়েছিল ৮৯ দশমিক ৭৬ শতাংশ, ২০১৫-১৬ অর্থবছরে ৯৩ শতাংশ, ২০১৪-১৫ অর্থবছরে ৯১ শতাংশ এবং ২০১৩-১৪ অর্থবছরে আরএডিপি বাস্তবায়িত হয়েছিল ৯৩ শতাংশ।

এ প্রসঙ্গে পরিকল্পনা সচিব মো. নূরুল আমিন সোমবার যুগান্তরকে জানান, তালিকায় ১৪টি প্রকল্প রয়েছে। এর বাইরে টেবিলে কোনো প্রকল্প যাওয়ার সম্ভাবনা নেই। তিনি জানান, সদস্যসমাপ্ত অর্থবছরে সর্বোচ্চ সংশোধিত এডিপি বাস্তবায়িত হয়েছে। আশা করছি নতুন অর্থবছরেও এর চেয়ে বেশি বাস্তবায়ন করা সম্ভব হবে।

আইএমইডি’র সচিব আবুল মনসুর মো. ফয়জুল্লা বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু বলতে পারছি না। তবে এটুকু বলতে পারি একনেকে এজেন্ডায় এখনও এটি নেই। তবে তাৎক্ষণিকভাবে পরিকল্পনামন্ত্রী হয়তো উপস্থাপন করতে পারেন।

সূত্র জানায়, ঢাকা (মিরপুর)-উথুলী-পাটুরিয়া জাতীয় মহাসড়কের (এন-৫) নবীনগর থেকে নয়াহাট ও পাটুরিয়া ঘাট এলাকা প্রশস্তকরণসহ আমিনবাজার থেকে পাটুরিয়া ঘাট পর্যন্ত বিভিন্ন বাসস্ট্যান্ড এলাকা ডেডিকেটেড সার্ভিস লেন ও বাস-বে নির্মাণ প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৬৯৬ কোটি ৩১ লাখ টাকা। অনুমোদন পেলে চলতি বছর থেকে ২০২১ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে সড়ক ও জনপথ অধিদফতর।

সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয় সূত্র জানায়, ঢাকা-উথুলী-পাটুরিয়া-নটাখোলা-কাশিনাথপুর একটি গুরুত্বপূর্ণ জাতীয় মহাসড়ক। এ মহাসড়ক দিয়ে প্রতিদিন প্রায় ১০ হাজারের অধিক হালকা ও ভারী যানবাহন চলাচল করে থাকে এবং যানবাহন সংখ্যা ক্রমবর্ধমান হারে বাড়ছে।

যানজট, দীর্ঘ ভ্রমণ সময় এবং সড়ক দুর্ঘটনা এই মহাসড়কের জন্য একটি নিত্য নৈমিত্তিক ঘটনা হয়ে দাঁড়িয়েছে। পণ্যবাহী যান চলাচল এবং সাধারণ জনগণের দ্রুত ও নিরাপদে গন্তব্যে পৌঁছার জন্য সরকার বিভিন্ন পদক্ষেপ নিয়েছে।

একনেকে উঠতে যাওয়া প্রকল্পগুলো হচ্ছে বগুড়া-নাটোর জাতীয় মহাসড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ প্রকল্প, লাকসাম-বাইয়ারা বাজার- ওমরগঞ্জ-নাঙ্গলকোট জেলা মহাসড়ক যথাযথ মান ও প্রশস্ততায় উন্নীতকরণ, মর্ডানাইজেশন অব সিটি স্ট্রিট লাইট সিস্টেম অ্যাট ডিফারেন্ট এরিয়া আন্ডার চিটাগং সিটি কর্পোরেশন, ডাক বিভাগের অধীনস্থ জরাজীর্ণ ডাকঘরগুলোর সংস্কার বা পুনর্বাসন, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর উন্নয়ন (দ্বিতীয় পর্যায়), কলকারখানা ও প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন অধিদফতরের আধুনিকায়ন ও ১৩টি জেলা কার্যালয় স্থাপন, বিএডিসির বিদ্যমান সার গুদাম রক্ষণাবেক্ষণ-পুনর্বাসন এবং নতুন গুদাম নির্মাণ, মেঘনা নদীর ভাঙন থেকে ভোলা জেলার তজুমুদ্দিন উপজেলা সদর সংরক্ষণ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব সাফারি পার্ক, কক্সবাজারের উন্নয়ন, ব্রাহ্মণবাড়ীয়া জেলায় ৯টি ব্রিজ নির্মাণ, সিলেট বিভাগে বিদ্যুৎ সঞ্চালন ব্যবস্থা সম্প্রসারণ, চট্টগ্রাম অঞ্চলে বিদ্যুৎ সঞ্চালন ব্যবস্থা সম্প্রসারণ ও শক্তিশালীকরণ এবং এস্টাবলিস্টমেন্ট অব থ্রি হ্যান্ড লুম সার্ভিস সেন্টার ইন ডিফারেন্ট এরিয়া প্রকল্পের ব্যয় বৃদ্ধি ছাড়া মেয়াদ বৃদ্ধির প্রস্তাব।

আলোকিত সকাল/এসআইসু

Facebook Comments