পলাশবাড়ীর আমলাগাছী বাজারে একটি ব্যাংকের শাখা স্থাপনের দাবি এলাকাবাসীর

256

আল কাদরী কিবরীয়া সবুজ পলাশবাড়ী (গাইবান্ধা) প্রতিনিধি

গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার বরিশাল ইউনিয়নের আমলাগাছী বাজারে একটি সরকারি অথবা বে-সরকারি ব্যাংকের শাখা স্থাপনের দাবি জানিয়েছেন শিক্ষক-ছাত্র, চাকুরিজীবি, ব্যবসায়ী ও এলাকাবাসী।

জানা যায়, পলাশবাড়ী উপজেলার থানার পরেই দেড়শত বৎসরের ঐতিহ্যবাহী একটি পুরাতন বাজার। এখানে প্রতি শুক্রবার ও মঙ্গলবার হাট বসে এবং সপ্তাহের অন্যান্য দিনগুলিতে নিয়মিত সকাল ও বিকেলে বাজার বসে। এখানে টিভি, ফ্রিজ শো-রুম, স্থায়ীভাবে ধান-চালের আড়ৎ, সার, রড, টিন, সিমেন্টে ব্যবসায়ী, ঔষধ ব্যবসায়ী, কাপড় ব্যবসায়ী, গালামাল ব্যবসায়ী ও হোটেল ব্যবসায়ীসহ প্রায় ২ শতাধিক দোকানপাট রয়েছে। মৌসুমি কৃষিজাত পণ্য প্রতিদিন ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন জায়গায় ট্রাকা যোগে প্রেরিত হয়। ব্যাংক না থাকায় হাটে আসা দূর-দূরান্তের ব্যবসায়ীদের লেনদেন করতে অসুবিধা সৃষ্টি হচ্ছে। ইহা ছাড়াও আরো অনেক ক্ষুদ্র ব্যবসায়ী রয়েছে তাদেরও নানাবিধ সমস্যা সৃষ্টি হচ্ছে নগদ লেনদেন করতে। বাজার সংলগ্ন এবং আশেপাশে রয়েছে বেশ কয়েকটি গ্রাম। এরমধ্যে রয়েছে পূর্ব-গোপালপুর, সাবদিন-ভগবতীপুর, কয়ারপাড়া, পূর্ব-ফরিদপুর, পূর্ব-গোপিনাথপুর, জালাগাড়ী-দূর্গাপুর, ছোট ভগবানপুর, বড়-গোবিন্দপুর, পার্বতীপুর, ডাকেরপাড়া, বুজরুক-বিষ্ণুপুর, মালিয়ানদহ, নান্দিশহর, পূর্ব-নয়নপুর, ময়মন্তপুর, পেপুলিজোড়, বরকতপুর গ্রামের প্রায় ৪০০ থেকে ৫০০ জন লোক রাজধানী ঢাকা এবং বিদেশে কর্মজীবী হিসেবে রহিয়াছেন। তাহারা নিয়মিত ভাবে প্রতি মাসে বাড়ীতে (রেমিটেন্স) বৈদেশিক মুদ্রা প্রেরণ করেন।

এই সমস্ত লোকজন স্থায়ীভাবে এলাকায় কোন ব্যাংকের শাখা না থাকার কারণে নানাবিধ অসুবিধার সম্মুখীন হচ্ছেন এবং বৈদেশিক মুদ্রা উঠানোর জন্য অত্র এলাকার লোকজনকে বাড়ী থেকে প্রায় ১০/১৫ কিলোমিটার দূরে উপজেলা বা জেলা সদরে গিয়ে ব্যাংক লেনদেন সাড়তে হয় যা সময় ও অত্যান্ত ঝুঁকিপূর্ণ ব্যাপার।
এখানে উল্লেখ্য যে, বাজার সংলগ্ন এলাকায় ১টি গ্রামীণ ব্যাংক, ২টি এনজিও আশা ও ব্রাক, ১টি উচ্চ বালক বিদ্যালয়, ১টি বালিকা বিদ্যালয় ও কলেজ, ১টি দাখিল মাদ্রাসা, ২টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, ২টি কেজি স্কুল, ১টি উপ-স্বাস্থ্য কেন্দ্র, ১টি পরিবার পরিকল্পনা কেন্দ্র ও ১টি ডাকঘর রয়েছে। তাই এলাকাবাসী সার্বিক বিবেচনায় এখানে একটি ব্যাংকের নতুন শাখা স্থাপন করলে যেমন, চাকুরীজীবী, ব্যবসায়ী, শিক্ষক-ছাত্র উপকৃত হবেন এবং তেমনি ব্যাংক কর্তৃপক্ষও আর্থিকভাবে লাভবান হইবে বলে মনে করেন। এ বিষয়ে এলাকাবাসী জনগুরুত্বপূর্ণ বিবেচনায় নিয়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, বাংলাদেশ ব্যাংকের গর্ভণর, অত্র এলাকার এমপি মহোদয়ের নিকট আকুল আবেদন জানিয়েছেন।

Facebook Comments