প্রশাসনের শৃঙ্খলা ভাঙলে শাস্তি : জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী

333

আলোকিত সকাল ডেস্ক

কোনো কর্মকর্তা-কর্মচারী প্রশাসনের শৃঙ্খলা ভাঙলে শাস্তি পেতে হবে হবে বলে হুঁশিয়ারি দিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী মো. ফরহাদ হোসেন।

বুধবার সচিবালয়ে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের শুদ্ধাচার পুরস্কার ২০১৭-১৮ প্রদান অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘সবাইকে শুদ্ধাচার চর্চা করতে হবে। যারা শুদ্ধাচার চর্চা করছেন না, তাদের জন্য আমি হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করতে চাই, প্রধানমন্ত্রী দৃঢ়তা দেখিয়েছেন আমরা কোনোভাবে দুর্নীতিকে বরদাশত করব না। দুর্ব্যবহার দুর্নীতির শামিল, দুর্ব্যবহারকেও আমরা বরদাশত করব না, এই সরকার বরদাশত করবে না।’

তিনি বলেন, আমরা খুব শক্ত করেই বলতে চাই, প্রশাসনে একটি শৃঙ্খলা আছে, যারা প্রশাসনের এই শৃঙ্খলা ভাঙবেন তাদের কিন্তু শাস্তি পেতে হবে।

উন্নয়নের বিভিন্ন সূচকে বাংলাদেশ বেশ এগিয়েছে জানিয়ে ফরহার হোসেন বলেন, ‘ইতোমধ্যে আমরা নিম্ন আয়ের দেশ থেকে নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশের মর্যাদা লাভ করেছি। আমাদের লক্ষ্য ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ ও ২০৪০ সালের মধ্যে উন্নত দেশে পরিণত হওয়া।’

‘আমি বিশ্বাস করি আপনারা মেধা, মনন, দেশপ্রেম, সৃজনশীলতার প্রয়োগ ঘটিয়ে উন্নত-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনে কার্যকর অবদান রাখবেন।’

জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বর্তমান সরকার জনপ্রশাসনকে যেভাবে নির্দেশনা ও শুদ্ধাচারের মধ্য দিয়ে এই জায়গায় আনতে সক্ষম হয়েছে, এতে সরকারের সদিচ্ছাটাই এখানে ফুটে উঠেছে। কাজের প্রতি আমাদের একধরনের স্পৃহা তৈরি হয়েছে।’

‘আমাদের কিছু অনিয়ম ও ত্রুটি ছিল। আমরা অনিয়ম অনেকাংশে দূর করতে সক্ষম হয়েছি। জঙ্গিবাদের মতো আমরা দুর্নীতিতেও জিরো টলারেন্স’-যোগ করেন প্রতিমন্ত্রী।

তিনি বলেন, ‘আমরা সম্মিলিতভাবে শুদ্ধাচার চর্চা ও দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে সমূলে দুর্নীতির মূল উৎপাটন করতে চাই। তবে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা নির্মাণে আমরা কোয়ালিটি সার্ভিস দিতে সক্ষম হবো।’

জনপ্রশাসন সচিব ফয়েজ আহম্মদের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বাংলাদেশ লোকপ্রশাসন প্রশিক্ষণ কেন্দ্রের (বিপিএটিসি) রেক্টর (সিনিয়র সচিব) এম আসলাম আলমসহ জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়য়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

আস/এসআইসু

Facebook Comments