বিশ্ব দেখবে গতির লড়াই

200

আলোকিত সকাল ডেস্ক

লন্ডন! বিশ্বকাপ ক্রিকেট খুঁজে পেয়েছে ফাইনালের দুটি দলকে। লর্ডসের সেন্ট্রাল উইকেটে গতকাল সবুজ ঘাস ছেঁটে ছোট করার কাজ চলছিল। সাহেবরা ক্রিকেট দেখতে আসবেন। একপেশে ফাইনাল না করার সিদ্ধান্তই হয়েছে। স্পোর্টিং উইকেটই হবে।

নিউজিল্যান্ড-ইংল্যান্ডের রোমাঞ্চকর পেসার আছে। সবুজ গালিচায় গতির লড়াই হবে, বারুদের গন্ধ পাওয়া যায়। রবিবার লন্ডনের সব পথ লর্ডসে এসে মিলবে না। তবে ইংল্যান্ড দীর্ঘদিন পর ফাইনালে। রানি এলিজাবেথ বাকিংহ্যাম থেকে নেমে আসতে পারেন।

নিউজিল্যান্ডেরও তো রানি তিনি। যে দলই শিরোপা উঁচিয়ে ধরুক না কেন, রানি খুশি। ফাইনালে ১৯৯৬ সালের পর এই প্রথম নতুন চ্যাম্পিয়ন আসছে। বিশ্বকাপের আয়োজকদের এখানে একটু স্বস্তি। বৃষ্টি ও ফরম্যাট নিয়ে ভালো সমালোচনার মধ্যে পড়েছেন তারা। এদিকে ভারতীয় দল চলে আসতে পারে লর্ডসে। বেচারাদের আইসিসি বিমানের টিকিট ম্যানেজ করে দিতে পারেনি। সবাই ধরেই নিয়েছিল, ভারত ফাইনালে খেলবে।

আর সেভাবে বিমানের টিকিট অন্য ভারতীয় সমর্থকরা সেভাবে কেটেছে। যা-ই হোক, ভারতের অনেক সমর্থক অবশ্য ফাইনালে আসবেন, ইংল্যান্ডকে সমর্থন দিতে। কী আর করা, ভারত তো ফাইনাল খেলতে পারছে না। ২০১৫ সালের ফাইনাল হয়েছিল অস্ট্রেলিয়া-নিউজিল্যান্ডের মধ্যে। সেবার অস্ট্রেলিয়া চ্যাম্পিয়ন হয়। ২০১১ সালে ভারত-শ্রীলংকা ফাইনাল খেলেছিল।

এবারও দক্ষিণ এশিয়ার কোনো দেশ ফাইনালে উঠতে পারেনি। ভারত ছাড়া বাকি তিনটি দলই অনিয়মিত ছিল এই বিশ্বকাপে। ভারত ম্যানচেস্টারে স্বল্প রানের ছুড়ে দেওয়া টার্গেট পূরণ করতে পারেনি। উল্টো হেরেছে নিউজিল্যান্ডের কাছে। আর অন্যদিকে ইংল্যান্ড বর্তমান চ্যাম্পিয়নদের নিয়ে ছেলেখেলা করেছে। এজবাস্টনে দ্বিতীয় সেমিফাইনালে আসলে কোনো লড়াই হয়নি।

তবে সাবেক ক্রিকেটাররা বেশ খুশি। তাদের মতে, নতুন চ্যাম্পিয়ন আসছে। এটা বরং তারা ভালো চোখে দেখছেন। অস্ট্রেলিয়া তো বিশ্বকাপটি নিজের সম্পত্তি বানিয়ে ফেলেছিল। ৫ বারের চ্যাম্পিয়ন। ইংল্যান্ড একেবারে অবিশ্বাস্য খেলে ফাইনালে উঠেছে, তা-ও আবার ১০৭ বল হাতে রেখে। কিংবদন্তি শেন ওয়ার্ন বেজায় চটেছেন। তিনি অস্ট্রেলিয়ার পি-ি চটকে দিয়েছেন। এমন হার মানতে পারছেন না বিশ্বকাপজয়ী এই স্পিনার।

আস/এসআইসু

Facebook Comments