রাজশাহীতে অবৈধ পুকুর খননে হারিয়ে যাচ্ছে ফসলি জমি

276

দূর্গাপুর (রাজশাহী) প্রতিনিধি

রাজশাহী দূর্গাপুর উপজেলার ৪নং ইউনিয়ন দেলুয়া বাড়ির আংরার বিলে অবৈধ ভাবে ফসলি জমিতে পুকুর বা দিঘি খনন করা হচ্ছে। জানা যায় কৃষি জমি পরিবর্তন করে পুকুর খনন করায় আবাদি জমির পরিমান কমে যাচ্ছে এবং হুমকীর মুখে পড়ছে বলে।

এলাকার কৃষকরা দাবি করেন স্থানীয়দের অভিযোগ প্রভাবশালীরা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ উপেক্ষা না করে জমি পরিবর্তন করে পুকুর খনন হচ্ছে। স্থানীয় প্রশাসন রহস্যজনক নিরব ভুমিকা পালন করছে। তবে অবৈধ পুকুর খনন যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছেন না বলেও অভিযোগ করছেন।

এদিকে উপজেলা নির্বাহী অফিসার লিটন সরকারের কাছে জানতে চাইলে তিনি জানান ৪নাং ইউনিয়ন দেলুয়া বাড়ির আংরার বিলে পুকুর খননের খবর তিনি জানেন না। এলাকায় একটি প্রভাবশালী মহল খাল, দাড়ি ও বিলে ফসলে জমিতে ফ্রি স্টাইলে যত্রতত্র পুকুর খনন করে মাছ চাষের নামে জমির প্রকৃতি পরিবর্তন অব্যাহত রেখেছেন। এতে বর্ষা মওসুমে পানি প্রবাহ বন্ধ হয়ে পড়ছে।

পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা না থাকায় এলাকার শত শত বিঘা ফসলি জমি অকেজু ভাবে পড়ে থাকছে। অপরদিকে ফসলি জমির পরিমান কমছে। মন্ত্রণালয় নির্দেশ রয়েছে জমির প্রকৃতি পরিবর্তন করা যাবে না। প্রভাবশালীরা মন্ত্রণালয়ের নির্দেশ উপেক্ষা করে জমির প্রকৃতি পরিবর্তন করে পুকুর খনন অব্যাহত রাখলেও স্থানীয় প্রশাসন রহস্যজনক নিরব ভুমিকা পালন করছে বলে স্থানীয়রা দাবি করেছেন।

ব্যবসার নামে পানি প্রবাহের নালায় পুকুর করায় ব্রীজ, কালভাট ও স্লুইজ গেট অকেজ হয়ে পড়ছে। পানি বদ্ধতায় বর্ষায় ফসলি জমির আবাদ নষ্ট হলেও তাদের দুরাবস্থায় কেউ এগিযে আসছে না বলে কৃষকরা দাবি করেন।

প্রভাবশালীদের হাত থেকে পানিনিষ্কাশনের ব্যবস্থা ও ফসলি জমিতে নিয়ম বর্হিভূত অপরিকল্পিত পুকুর খনন বন্ধের জন্য দফায় দফায় ভুক্তভোগী কৃষকরা স্থানীয় উপজেলা নির্বাহী অফিসারের মাধ্যমে জেলা প্রশাসকসহ সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে ব্যবস্থা গ্রহণের লিখিত আবেদন করেছেন।

আস/এসআইসু

Facebook Comments