রোবটের সঙ্গে মানুষের সম্পর্ক কী দাঁড়াবে?

362

আলোকিত সকাল ডেস্ক

রোবট নিয়ে সবার মনেই কৌতূহল রয়েছে। প্রযুক্তির উন্নতির সঙ্গে সঙ্গে রোবটের ব্যবহারও বেড়ে চলেছে। কিন্তু রোবটের সঙ্গে আমরা কতটা স্বাচ্ছন্দ্য বোধ করি? এক গবেষণায় এই প্রশ্নে বিভিন্ন দেশের মনোভাব ধরা পড়েছে।

বর্তমান প্রবণতার ভিত্তিতে ধরে নেওয়া যায়, যে নানা ধরনের রোবটের বাজার আগামী ১০ বছরে সম্ভবত তিন গুণ বেড়ে যাবে। এর অর্থ, ভবিষ্যতে প্রায়ই আমাদের সঙ্গে রোবটের দেখাসাক্ষাৎ হবে। এমন ভবিষ্যৎ সম্পর্কে আমাদের মনে ভয়ভীতি হবে, নাকি আমরা সহজেই তা মেনে নেবো? দেশ অনুযায়ী সম্ভবত এই মনোভাব নির্ভর করে।

মানুষ কতটা খুশিমনে অথবা বিরক্তির সঙ্গে রোবটের সঙ্গে ভাবের আদানপ্রদান করে, তাৎসিয়া নোমুরা সেই বিষয়টি নিয়ে পরীক্ষানিরীক্ষা করছেন। একটি গবেষণার আওতায় তিনি ও তার সহকর্মীরা ৭টি দেশের মানুষের কাছে কিছু প্রশ্ন রেখেছিলেন। ব্রিটেন, জার্মানি, নেদারল্যান্ডস, মেক্সিকো, চীন, জাপান ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে এই গবেষণা চালানো হয়।

তাতে জানা গেল, যে অ্যামেরিকার মানুষ রোবটদের বিষয়ে সবচেয়ে অনুকূল প্রতিক্রিয়া দেখান৷ তার পরেই জাপান, নেদারল্যান্ডস, জার্মানি, চীন ও ব্রিটেনের স্থান৷ কিন্তু মেক্সিকোর মানুষ এ বিষয়ে অত্যন্ত নেতিবাতক প্রতিক্রিয়া দেখিয়েছেন। প্রো. নোমুরা বলেন, ‘‘মানুষ রোবটকে ভালো না মন্দ মনে করেন, সেটি শুধু দেশের উপর নির্ভর করছে না৷ এ ক্ষেত্রে বিভিন্ন প্রজন্মের মধ্যেও ফারাক দেখা যায়। জাপানে সব প্রজন্মই রোবট পছন্দ করে৷ আবার ব্রিটেনে শুধু তরুণ প্রজন্মের প্রতিক্রিয়া ইতিবাচক। বয়স্করা এটি পছন্দ করেন না৷ সম্ভবত নারী ও পুরুষের মধ্যেও ফারাক থাকতে পারে।”

কারণ গবেষণায় দেখা গেছে, নারীরা পুরুষদের তুলনায় রোবট সম্পর্কে অনেক বেশি ইতিবাচক মনোভাব প্রকাশ করেছেন।

জাপানের মানুষ মূলত হিউম্যানয়েড রোবট বেশি পছন্দ করেন৷ এমনকি তাদের মধ্যে মানুষের বৈশিষ্ট্যও রয়েছে বলে তারা মনে করেন৷ প্রো. নোমুরা এই মনোভাবের ব্যাখ্যা করে বলেন, ‘‘জাপানে অ্যানিমিজম বা সর্বপ্রাণবাদ নামের একটি ধারণা চালু রয়েছে। কোনো বস্তুর মানুষের আকার থাকলেই তার মধ্যে আত্মাও রয়েছে বলে ধরে নেওয়া হয়। শুধু জাপান নয়, সব সংস্কৃতিতেই অ্যানিমিজমের রকমফের রয়েছে।”

সংবাদমাধ্যম ও পপ সংস্কৃতি রোবটের ভাবমূর্তি গড়ার ক্ষেত্রে অবশ্যই ভূমিকা রাখে। জাপানের চলচ্চিত্র ও মাংগা কমিকসে রোবটদের মধ্যে মানুষের অনেক বৈশিষ্ট্য দেখা যায়। যেমন অ্যাস্ট্রো বয় নামের ক্লাসিক চরিত্র৷ অথবা ‘গোস্ট ইন দ্য শেল’ কাহিনির মাংগা সংস্করণে।

হলিউডে ‘আইরোবট’-এর মতো জনপ্রিয় চলচ্চিত্রেরোবটরাই আধিপত্যবিস্তার করে মানবজাতির বিনাশের চেষ্টা করে।

আস/এসআইসু

Facebook Comments