সংবাদ পাঠে ড্রেসকোড কেমন হয়

48

 

বিশ্বসেরা গণ্যমাধ্যমগুলোতে সুনির্দিষ্ট ড্রেসকোড রয়েছে। বিবিসি, সিএনএন, সিএনবিসি, ফক্স নিউজ, আল জাজিরা, এনডিটিভিসহ গুরুত্বপূর্ণ টিভি চ্যানেলগুলোতে উপস্থাপকের পোশাকের বিষয়ে একটি নীতিমালা মেনে চলা হয়। উপস্থাপকের ব্যক্তিত্ব ও সংবাদের গুরুত্বে যেমন নজর রাখা হয় তেমনি রুচিশীল ও সাংস্কৃতিক গ্রহণযোগ্যতা বিবেচনা করে বেছে নেওয়া হয় টিভি উপস্থাপকদের পোশাক।

বিবিসির আন্তর্জাতিক সংবাদ পাঠকদের তালিকায় রয়েছেন বিশ্বসেরা উপস্থাপক। তাদের মধ্যে হিউ অ্যাডওয়ার্ডস, ফিউনা ব্রুস, র‌্যাচেল বার্ডেন, জর্জ, জেন হিল পরিচিত মুখ। সিএনএনে খবর পড়েন নাটালি অ্যালেন, গুলেরিমো, ক্রিস্টিন আমানপুর, ব্রুক বেল্ডউইন, ভিক্টর ব্ল্যাকওয়েল, কার্ল আজুজের মতো তারকারা। তারা টিভি উপস্থাপক ও হোস্ট দুই পরিচয়েই জনপ্রিয়। সকাল, দুপুর ও সন্ধ্যার খবর ছাড়াও বিভিন্ন সংবাদ বিশ্লেষণমূলক অনুষ্ঠানে তাদের দেখা যায়। বিশ্বজুড়েই বিবিসি দেখা যায়, সে কারণে তারা বেছে নিয়েছেন সারা বিশ্বে স্বীকৃত পোশাক। পুরুষ সংবাদ পাঠকরা পরেন কোট-টাই-শার্ট। কমপ্লিট স্যুটের পাশাপাশি তারা ব্লেজারও বেছে নেন কখনো কখনো। কখনোই চকচকে কোনো রংয়ের বা ডিজাইনের স্যুট পরেন না তারা। একই সংবাদ পাঠক দিনের অন্য সময় সংবাদ পরতে আসেন না। যদি কোনো কারণে আসেন সে ক্ষেত্রে একই পোশাক পরেন না। কব্জির ওপরের অংশ কোনোভাবেই টিভি পর্দায় আনেন না এই সংবাদ পাঠকরা। স্যুটের নিচে সাদা শার্ট তাদের প্রথম পছন্দ। কখনো যদি ভিতরের শার্ট পরিবর্তন করেন, বেছে নেন এক রঙা শার্ট। সে ক্ষেত্রে পাল্টে পরেন হালকা রঙের স্যুট। টাইয়ের রং বেছে নেন স্যুটের সঙ্গে মানিয়ে। কখনোই ব্লেজার বা স্যুটের নিচে রঙিন শার্ট পরেন না তারা। স্যুটের রঙেও তাদের পরিপাটি মনোভাব প্রকাশ পায়। ব্যক্তিত্ব বজায় রাখতে নেভি ব্লু, রয়েল ব্লু, ব্ল্যাক, অ্যাশ, চারকল গ্রে, লাইট গ্রে, ট্রু ব্লু- এই রংগুলোই বেশি দেখা যায়। সঙ্গে থাকে চেক টাই অথবা এক রঙা টাই।

রাতের প্রধান খবরে লাল ও নেভি ব্লু রঙের টাই বেছে নিতে দেখা যায় বেশি। পুরুষ সংবাদ পাঠকরা সাইড ব্রাশ ও ব্যাক ব্রাশ দুইভাবেই চুল আঁচড়ে থাকেন। অনেকে হেয়ার ¯ন্ডেপ্র ব্যবহার করেন। চশমায় যাদের মানিয়ে যায় তারা কালো ফ্রেমের চশমা পরেন। মেকআপ নেন লাইটিং ও টিভি পর্দায় তাদের ত্বকের উজ্জ্বলতা বিবেচনা করে। নারী সংবাদ পাঠকদেরও প্রথম পছন্দ থাকে ব্লেজার। বিশ্বজুড়ে স্যাটেলাইট সম্প্রচারে এই পোশাকই সবচেয়ে গ্রহণযোগ্য বলে সাধারণত তারা এর বাইরে পোশাক পরেন না। তবে হালফ্যাশনে অনেকে স্যুটের কাটে বৈচিত্র্য এনেছেন। কখনো কখনো ফুলস্লিভ জামাও পরেন তারা। তবে সন্ধ্যা ছয়টা ও রাত দশটার খবরে তারা কমপ্লিট স্যুট বেছে নেন। ফ্যাশনসচেতনতার দিক থেকে তাই বলে পিছিয়ে থাকার পাত্র নন কেউ। নারী সংবাদ পাঠকদের ব্লেজারের নিচে সাদা শার্ট পরতে দেখা যায়। সকালের সংবাদ বিশ্লেষণের অনুষ্ঠানে কখনো কখনো রঙিন জামা পরেন তারা। চুলের কাটও রাখেন মাননসই। মুখের সঙ্গে মানিয়ে চুলের কাট নেন। চুলে রং করার বিষয়টি একবারে নিষিদ্ধই বলা চলে। কাঁধ পর্যন্ত চুল রাখার ব্যাপারে অধিকাংশ নারী সংবাদ পাঠক গুরুত্ব দিয়ে থাকেন বিশ্বজুড়ে। পরেন না কোনো উজ্জ্বল ও ভারি জুয়েলারি। আটোসাঁটো কোনো পোশাক বেছে নেন না। বেশির ভাগ সময়ই গলা পর্যন্ত ঢেকে জামা পরেন। ব্লেজারের কাটে ভি শেপ থাকলেও সেটা বেশি নিচে নামান না। ফুল হাতা জামা পরতে দেখা যায় তাদের। ব্লেজারের সঙ্গে মানিয়ে জামার রং বাছাই করেন। নেভি ব্লু ও রয়েল ব্লু ব্লেজার বেশি পরতে দেখা যায় তাদের। অনেকে সাদা শার্টের ওপর লাল ব্লেজার পরেন। আজকাল বেশির ভাগ নারী সংবাদ পাঠক কনটাক্ট লেন্স ব্যবহার করেন।

Facebook Comments