সব দোষ তাহলে ধোনির!

360

আলোকিত সকাল ডেস্ক

প্রেসবক্সে ভারতের এক প্রবীণ সংবাদকর্মীকে একজন প্রশ্ন করলেন? ভারত কি ইংল্যান্ডকে বন্ধুত্বের জন্য ম্যাচটা উপহার দিলো? নাকি ভারতের মিডল অর্ডারে দুর্বলতা? তরুণ সংবাদকর্মীর এমন প্রশ্ন শুনে বেশ হকচকিয়ে গেলেন তিনি। তবে হেসে বলেন, ‘আপাত দৃষ্টিতে তুমি যাই বলো সেটিই সত্যি। কারণ ভারত পারেনি। কারণ তাদের যে শক্তি সেই তুলনাতে শেষ দিকে রান তোলার ব্যর্থতা এসব প্রশ্নই তৈরি করে। তবে আমি মনে করি সেটি হয়নি। তারা পারেনি, ইংল্যান্ডও দারুণ খেলেছে। কারণ ইংলিশদের জন্য এটি বাঁচা মরার লড়াই ছিল। আমি জানি তোমরা ধোনির সক্ষমতা সম্পর্কে জানো।

ওর এই স্লো ব্যাটিংটা বেশ প্রশ্ন তুলছে। আমি মনে করিনা ওকে একা দোষ দিয়ে লাভ আছে। এমন বাজে দিন যেতেই পারে। এমন হতো শুধু এই ম্যাচেই সে এমন করেছে তাহলে ভিন্ন কথা। এই বিশ্বকাপে ধোনি পারছেনা। সেটি মেনে নিতে হবে।’

৬০ বলে দরকার ১০০ রান, ভারতের হাতে তখনো ৬ উইকেট। কিন্তু শেষ দিকে এসে যেন ভারতের আর জয়ের ইচ্ছাই ছিল না। আইপিএলের মহা তারকাদের কাছে এই লক্ষ্যতো মামুলি। যেখানে মহেন্দ্র সিং ধোনির মতো ক্রিকেটার আছেন। তারাই কিনা শেষ পর্যন্ত হেরে গেলো ইংল্যান্ডের কাছে। এই হারে বদলে গেল বাংলাদেশ দলের ভাগ্যও। ইংল্যান্ড হারলে টাইগারদের জন্য বিশ্বকাপে টিকে থাকা হতো বেশ সহজ। তারচেয়ে বড় প্রশ্ন তৈরি করেছে ভারতের শেষ দিকে এসে স্লো ব্যাটিং।

ভারতীয় এক নারী সংবাদকর্মীকে প্রেসবক্সে বেশ উত্তেজিতই মনে হলো। তিনি যুক্তিও তুলে ধরলেন- ‘সেই সময় সুযোগ ছিল । সব ওভারে যে চার ছয় মারতে হবে তাও না। কোনো কোনো ওভারে রানের চাকা সচল রাখার সুযোগ ছিল। ধোনি এমন ব্যাটিং কেন করলো। দুই দিন আগেই তার এমন স্লো ব্যাটিং নিয়ে মুখ খুলেছেন ভারতের গ্রেট শচীন টেন্ডুলকার। ধোনি যে আর চলেনা সেটি মানতে হবে।’ তবে নিজদেশের সংবাদকর্মীদের এমন অভিযোগ মানতে নারাজ ভারতের আরেক ক্রিকেট গ্রেট সঞ্জয় মাঞ্জরেকার। তিনি বলেন, ‘একজনের কাছে তোমরা কত আশা কর? রোহিত সেঞ্চুরি করেছে। কোহলি চেষ্টা করেছে। অন্যদের কি দায়িত্ব ছিল না? অন্যরা কেন পারলো না। তবে ধোনিকে নিয়ে তোমরা যা বলছো তা উচিত নয়। এখনোতো আরো ম্যাচ আছে। ধোনি যেমন ব্যাটসম্যান তার পক্ষে সব পরিস্থিতি বদলে দেয়া সম্ভব।’

তবে কোন কিছুতেই যেন কোহলিদের এমন হার মেনে নিতে পারছেনা ভারতের সংবাদ মাধ্যম। তাই প্রশ্ন ছুটে গিয়েছিল মাশরাফির দিকেও। যদিও টাইগার অধিনায়ক গা বাঁচিয়ে সে উত্তর দিয়েছেন। তবে একটা জায়গাতে মাশরাফি বেশ খুশি। ভারতের বিপক্ষে ইংল্যান্ডের হার শুধু বাংলাদেশই নয় পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কাও চেয়েছিল। মাশরাফি মজা করে বলেন, ‘অন্তত একটা বিষয়তো ভালো যে একটা জায়গাতে এশিয়ানরা এক জায়গাতে আসতে পেরেছে। এই ম্যাচটাকে তাই আমি আলাদা ভাবেই দেখছি। তবে আমি এখানে ওদের হারকে অন্যভাবে কোনো ব্যাখ্যা দিতে চাইনা। আমার মনে হয় তাদের জন্য ৬০ বলে ১০০ রান সম্ভব ছিল। কিন্তু নিয়মিত বিরতিতে উইকেট পড়েছে। তাই পারেনি।’

আস/এসআইসু

Facebook Comments