সরকারের মত দূতাবাস গুলোও দূর্নীতির আখরা: লেবানন বিএনপি

34

বাংলাদেশ সরকারের মত বহির বিশ্বে বাংলাদেশের মিশন গুলোও দূর্নীতির আখরায় পরিনত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছে বাংলাদেশ জাতীয়তাবাদী দল বিএনপি লেবানন কেন্দ্রীয় কমিটির নেতৃবৃন্দ। ২০ ডিসেম্বর রবিবার লেবাননের বাংলাবাজার খ্যাত ছাপরা বাজারের একটি কফিশপে মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভায় নেতৃবৃন্দ এমন মন্তব্য করেন।

নেতৃবৃন্দ বলেন, বিশ্বের অন্যান্য দেশের মত লেবাননে করোনা পরিস্থিতির জন্য প্রবাসীদের তেমন কষ্ট নেই, প্রবাসীরা কষ্ঠে রয়েছে লেবাননের অর্থনীতি মন্দার কারণে। বর্তমানে হাজারো প্রবাসী কর্মহীন, আর যাদের কর্ম রয়েছে, তাদের মাসিক বেতন বাংলাদেশী টাকায় ৭ থেকে ১০ হাজার টাকা। যা দিয়ে একজন প্রবাসী দেশে তার পরিবারকে সচল রাখাতো দূরের কথা, লেবাননে নিজে বাচার জন্য ঘর ভাড়া আর বাসা ভাড়া দিতেই হিমসিম খাচ্ছে।

তারা বলেন, কর্মহীনরা তো বেচে রয়েছে আল্লাহর ভরসায়। কোন রকম খেয়েপুরে বেচে আছে। এমন পরিস্থিতিতে লেবানন ত্যাগ করতে মানববন্ধনও করেছে বাংলাদেশী প্রবাসীরা। কিন্তু তাতেও বাংলাদেশ সরকার আর লেবাননে বাংলাদেশের দূতাবাসের মন গলেনি। উল্টো প্রবাসীদের পকেট কাটার ব্যবস্থা করেছে বাংলাদেশ দূতাবাস।

নেতৃবৃন্দ বলেন, বাংলাদেশ দূতাবাস থেকে নোটিশ জারি করা হয়েছে অবৈধ প্রবাসীদের ফেরাতে কর্মসূচী হাতে নেয়া হয়েছে। দেশে ফিরতে হলে নাম নিবন্ধন করতে হবে ২৫ থেকে ২৮শে ডিসেম্বর, কিন্তু এই ৪ দিনে যারা নাম নিবন্ধন করতে পারবেনা, তাদের কি হবে। তারা কি লেবাননে পঁচে মরবে?

নেতৃবৃন্দ আরো বলেন, নোটিশে আরো বলা হয়েছে বিমান টিকেট বাবদ ৪শত মার্কিন ডলার জমা দিতে হবে দেশে ফিরতে। দূতাবাস কি অসহায় প্রবাসীদের খবর রেখেছে, কোথা হতে ৪শত মার্কিন ডলার প্রবাসীরা দিবে? লেবাননে যেখানে লেবানিজ মূদ্রায় ১৩ থেকে ১৫ লাখ লিরায় বৈরুত টু ঢাকা বিমান টিকেট পাওয়া যায়, সেখানে এই দূর্সময়ে বাংলাদেশ দূতাবাস কিভাবে প্রবাসীদের উপর এই জুলুম করতে পারে যে তাদের থেকে ৪শ ডলার সমান ৩৪ লাখ লিরা নিতে নোটিশ জারি করে।

নেতৃবৃন্দ প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে বলেন, এটা কি প্রাসীদের পকেট কাটা নয়?

নেতৃবৃন্দের দাবি, কোন বিমান টিকেট নয়, সরকারী খরচে লেবাননের সকল অসহায় দেশে ফিরতে ইচ্ছুক প্রবাসীদের দেশে ফিরিয়ে নিতে হবে।

অনুষ্ঠানের শুরুতে পবিত্র কোরআন তেলাওয়াত করা হয় এবং মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে শহীদ রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমান ও সকল শহীদদের আত্মার শান্তি কামনায় এবং বেগম খালেদা জিয়ার রোগ মুক্তি ও দীর্ঘয়ু কমনায় বিশেষ দোয়া করা হয়।

লেবানন বিএনপির সভাপতি নজরুল ইসলাম মজুমদারের সভাপতিত্বে ও সহ-সভাপতি আমিনুল ইসলাম আইমানের সঞ্চালনায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন প্রধান উপদেষ্টা আব্দুল হালিম, বিশেষ অতিথি সাধারণ সম্পাদক মুজিবুল হক মুজিব, উপদেষ্টা আমির হোসেন কলিম, সিনিয়র সহ সভাপতি জাকির হোসেন জাকির, সহ সভাপতি আবু বক্কর সিদ্দিক, আব্দুল কাদের ভূইয়া সহ অনেকে।

অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য কাউসার আহমেদ উপদেষ্টা, মিজানুর রহমান, সিনিয়র যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক শহীদুল্লাহ্ মাস্টার, মহিলা দলের সভাপতি সুলতানা নুর, যুবদলের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মফিজ মিয়া, সহ সাধারণ সম্পাদক আরমান হোসেন, দপ্তর সম্পাদক মোতালেব হোসেন, টিস্যু শাখার সভাপতি রফিকুল ইসলাম, সাইদা শাখার সাধারণ সম্পাদক বেলাল হোসেন, সিনিয়র সহ-সভাপতি রইস উদ্দিন সহ অনেকে।

অন্যদিকে উক্ত অনুষ্ঠানে লেবানন বিএনপি কেন্দ্রীয় কমিটির মেয়ার শেষ প্রান্তে চলে আসায় তিন সদস্য বিশিষ্ট আহবায়ক কমিটি গঠন করা হয়। প্রধান আহ্বায়ক হিসেবে মনোনীত হন লেবানন বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা সদস্য ও বর্তমান কমিটির উপদেষ্টা মন্ডলীর সদস্য আমির হোসেন কলিম, যুগ্ন আহ্বায়ক মনোনীত হন সাবেক যুগ্ন আহবায়ক ও বর্তমান কমিটির সহ সভাপতি আবদুল কাদের ভুঁইয়া এবং সদস্য সচিব হিসেবে মনোনীত হন সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক ও বর্তমান কমিটির সিনিবর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাবিবুর রহমান হাবিব।সভাপতি নজরুল ইসলাম মজুমদার তার বক্তব্যে এই তিন জনের নাম ঘোষনা করে তাদের হাতে দায়িত্ব তুলে দেন।

এই তিন সদস্য বিশিষ্ট্য কমিটি আরো সদস্য নিয়োগ দিয়ে আগামী তিন মাসের মধ্যে লেবাননে একটি সাংগঠনিক ও শক্তিশালী কমিটি উপহার দিবেন বলেন জানান নব গঠিত আয়বায়ক কমিটির নেতৃবৃন্দ।

Facebook Comments