সাঁকোতেই খুশি তারা

345

আলোকিত সকাল ডেস্ক

সূতি নদীটি দুই উপজেলার অর্ধশত গ্রামের মানুষকে পৃথক করে রেখেছে যুগের পর যুগ। উপজেলা দুটি হলো নেত্রকোণার কেন্দুয়া ও কিশোরগঞ্জের তাড়াইল। কেন্দুয়া উপজেলার মোজাফরপুর ইউনিয়নের গগডা ও তাড়াইল উপজেলার রাউতি ইউনিয়নের নগুয়া দাউদপুর এলাকায় নদীটি দুই উপজেলাকে বিভক্ত করে বয়ে গেছে। নদী পারাপারের ব্যবস্থা না থাকায় দুই উপজেলার অন্তত ছয়টি ইউনিয়নের লোকজনকে তাদের উৎপাদিত ফসল ঘরে তুলতে হয় চরম দুর্ভোগের মধ্য দিয়ে। জরুরি প্রয়োজনে এলাকাবাসীকে নদী পারাপার হতে হয় সাঁতরে।

এলাকার মানুষের এমন দুর্ভোগের চিত্র দেখে নদীতে একটি বাঁশের সাঁকো নির্মাণ করে দিয়েছেন কেন্দুয়া উপজেলার মোজাফরপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান নূরে আলম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর চৌধুরী। দীর্ঘদিন পর বাঁশের সাঁকোর মাধ্যমে দুই উপজেলাবাসীর মধ্যে সংযোগ ঘটেছে। এতে বেশ আনন্দিত দুই উপজেলার লোকজন। তবে সাময়িকভাবে খুশি হলেও নদী তীরবর্তী বেশ কয়েকটি গ্রামের কৃষকসহ দুই উপজেলার বাসিন্দারা সূতি নদীর ওপর স্থায়ী সেতু চান। তাদের দাবি, সরকার অচিরেই ওই নদীতে সেতু নির্মাণ করে দিয়ে দুই উপজেলার মানুষকে স্থায়ী সংযোগের আওতায় নিয়ে আসবে।

সাঁকো নির্মাণের উদ্যোক্তা ইউপি চেয়ারম্যান নূরে আলম মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর চৌধুরী জানান, ইউনিয়ন পরিষদের ইজিপিপি প্রকল্পের (ননওয়েজ কস্ট) অর্থ দিয়ে লক্ষাধিক টাকা ব্যয়ে সাঁকোটি নির্মাণ করে দেওয়া হয়েছে। বাঁশের সাঁকোর মাধ্যমে দুই উপজেলার লোকজনের সাময়িক সংযোগ করে দিতে পেরে এলাকাবাসীর দুর্ভোগ কিছুটা হলেও কমাতে পেরেছি।

তাড়াইল উপজেলার রাউতি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান শরীফ উদ্দিন জুয়েল জানান, কেন্দুয়ার মোজাফরপুর ইউপি চেয়ারম্যান সাঁকোটি নির্মাণ করে দিয়ে খুব ভালো কাজ করেছেন। এ জন্য ওই চেয়ারম্যানকে ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন এবং এখানে একটি স্থায়ী সেতু নির্মাণের জন্য সরকারের সুদৃষ্টি কামনা করেন তিনি।

কেন্দুয়া ও তাড়াইল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আল-ইমরান রুহুল ইসলাম এবং তারেক মাহমুদ বলেন, সূতি নদীতে সাঁকোর জায়গায় একটি সেতু নির্মাণ করা খুবই জরুরি। সেতু নির্মাণের জন্য ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করবেন বলেও এলাকাবাসীকে আশ্বস্ত করেন তারা।

কেন্দুয়া উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. নুরুল ইসলাম বলেন, এখানে একটি স্থায়ী সেতু নির্মাণ করা এখন সময়ের দাবি। বিষয়টি নিয়ে আমি নেত্রকোনা-৩ আসনের এমপি অসীম কুমার উকিলের সঙ্গে কথা বলব। আশা করি এমপি মহোদয় এখানে সেতু নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করবেন।

আস/এসআইসু

Facebook Comments