খুলনায় ওজোপাডিকোর রিবেট নিতে গ্রাহকদের ভোগান্তি

305

আলোকিত সকাল ডেস্ক

ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি লিমিটেডের (ওজোপাডিকো) রিবেট (পরিশোধিত বিলের ওপর এক শতাংশ ছাড়) নিতে গিয়ে গ্রাহকরা নানা ভোগান্তি ও বিড়ম্বনার শিকার হচ্ছেন। মাত্র একটি বুথের সামনে সারিবদ্ধ হয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা লাইনে দাঁড়িয়ে অপেক্ষা করতে হচ্ছে শত শত গ্রাহককে। একপর্যায়ে ক্ষুব্ধ গ্রাহকরা বুথের কর্মচারীদের সঙ্গে বাগবিতণ্ডায়ও জড়িয়ে পড়ছেন।

এদিকে ওজোপাডিকোর রিবেট নিতে গ্রাহকদের ভোগান্তি রোধে দ্রুত পদক্ষেপ নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন প্রি-পেইড মিটারের দুর্নীতি প্রতিরোধে সংগ্রাম কমিটির নেতৃবৃন্দ। গত শুক্রবার রাতে নগরীর সোনাডাঙ্গাস্থ অস্থায়ী কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত সংগঠনের এক জরুরি সভায় এ দাবি জানানো হয়।

ওজোপাডিকো সূত্র জানায়, বর্তমান বিদ্যুত্ বিলের পাশাপাশি বিগত দেড় বছরের রিবেট পাচ্ছেন ওয়েস্ট জোন পাওয়ার ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির বিদ্যুত্ গ্রাহকরা। সেই রিবেট নিতে এসেই তারা পড়েছেন নানা ভোগান্তি ও বিড়ম্বনায়। বিদ্যুত্ বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ-১, ২, ৩ ও ৪ এর দফতরে গত ১৯ জুন থেকে এ রিবেট দেওয়া হচ্ছে। গ্রাহকরা প্রি-পেইড মিটারের কার্ড নিয়ে বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ-১, ২, ৩ ও ৪ এর দফতরে গেলে সংশ্লিষ্ট দফতর থেকে একটি টোকেন দেওয়া হচ্ছে। যে টোকেনে প্রি-পেইড মিটার বসানো থেকে শুরু করে চলতি বছরের এপ্রিল মাস পর্যন্ত ব্যবহূত বিদ্যুত্ মূল্যের ১ শতাংশ রিবেট অনুযায়ী হিসাব করে সম্পূর্ণ টাকা উল্লেখ রয়েছে। গ্রাহক ওই টোকেন নিয়ে তার প্রি-পেইড মিটারে ব্যবহার করতে পারছেন।

বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ-১ এ রিবেট নিতে আসা গ্রাহক আব্দুস সালাম বলেন, মুখ চিনে পরিচিতদের আগে টোকেন দেওয়া হচ্ছে। এক্ষেত্রে ক্ষমতাসীন দলের নেতা এমনকি তাদের গাড়ির চালকও পরে এসে আগে নিয়ে যাচ্ছে। আর সাধারণ মানুষ লাইনে দাঁড়িয়ে তা দেখছে।

অনুরূপভাবে শায়লা নামের এক গ্রাহক বলেন, নারী-পুরুষ সব একই লাইনে দাঁড়াতে হচ্ছে। এতে নারীদের বিব্রত হতে হচ্ছে। পুরুষরা ধাক্কাধাক্কি করে সামনে আগাতে পারলেও নারীরা পারছে না।

আজমল নামের অপর এক গ্রাহক বলেন, ওজোপাডিকো কর্তৃপক্ষ ইচ্ছা করেই আমাদের ভোগান্তিতে ফেলেছে। তাদের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের দুপুরে আধাঘণ্টা খাওয়ার বিরতি থাকলেও তারা একঘণ্টা লাগাচ্ছেন।

প্রি-পেইড মিটারে বিদ্যমান দুর্নীতি প্রতিরোধে সংগ্রাম কমিটির সদস্য সচিব মহেন্দ্রনাথ সেন বলেন, গ্রাহকদের রিবেটের টাকা ফেরত দেওয়া তাদের আন্দোলনের ফসল। কিন্তু তা পেতে যে ভোগান্তি হচ্ছে সেটা মেনে নেওয়া যায় না। গ্রাহকরা যাতে না আসে সেজন্য এ ব্যবস্থা করা হয়েছে। এটা বন্ধ করে বুথ বাড়ানোর দাবি জানান তিনি।

ওজোপাডিকোর বিক্রয় ও বিতরণ বিভাগ-১ এর নির্বাহী প্রকৌশলী মাহমুদুল হক বলেন, একটু কষ্ট করে গ্রাহকদের রিবেট নিতে হবে। জনবল কম দাবি করে তিনি বলেন, নারী-পুরুষ একই বুথ থেকে নিতে হবে। এর বাইরে আমাদের কিছু করার নেই।

আস/এসআইসু

Facebook Comments