নোয়াখালীতে অবৈধভাবে চলছে ভ্রাম্যমান গ্যাস ব্যবসা

165

নোয়াখালী সদর প্রতিনিধি

নোয়াখালীর কবিরহাট উপজেলায় অবৈধ ভাবে চলছে গ্যাসের ব্যবসা। কবিরহাট পৌরসভা ১নং ওয়ার্ডের জৈনদপুর এলাকায় কাভার্ডভ্যানে করে বিক্রি করছেন ওই গ্যাস। কবিরহাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয় ও থানা ভবন থেকে ২৫০ মিটারের মধ্যে চলছে এ ব্যবসা।

এ ছাড়াও উপজেলার, ওটারহাট রাস্তার মাথার ইমাম উদ্দিন মিয়ার বাড়ির ভিতরে, সুন্দলপুর ইউনিয়নের হাতাল্লা পোল এলাকা, চাপরাশীরহাট বাজারের দক্ষিণ পাশে লাল গেইটের সামনে, ঘোষবাগ ইউনিয়নের কোম্পানীর হাট বাজারে, ধানসিঁড়ি ইউনিয়নের নবগ্রামের চিরিঙ্গা বাজারসহ বিভিন্ন পয়েন্টে যানবাহনের কাছে চড়া দামে এ গ্যাস বিক্রি হচ্ছে।

স্থানীয়দের অভিযোগ, সংশ্নিষ্ট কর্তৃপক্ষ দেখেও না দেখার ভান করছে। তাদের দাবি এভাবে চলতে থাকলে যে কোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটতে পারে। ফলে প্রাণহানি ছাড়াও বিস্তীর্ণ এলাকা ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে।

স্থানীয় সূত্রে জানা যায়, কবিরহাট উপজেলায় কোনো সিএনজি ফিলিং স্টেশন নেই। ওই উপজেলার সিএনজি চালিত যানবাহন গুলো জেলা শহর মাইজদী এবং পাশের ফেনী জেলার দাগনভূঞা এসে গ্যাস নিতে হয়। এ সুযোগে একটি অসাধু চক্র বিভিন্ন সিএনজি স্টেশন থেকে কাভার্ড ভ্যানের ভিতরে ৪০-৫০টি সিলিন্ডার গ্যাস ভর্তি করে এনে ঝুঁকিপূর্ণ ও বিপজ্জনক ভাবে কয়েকটি স্পটে অবাধে বিক্রি করছে।

এ বিষয়ে রূপান্তরিত প্রাকৃতিক গ্যাস (আরপিজিসিএল)’র মহাব্যবস্থাপক (অপারেশন) প্রকৌশলী মোহাম্মদ আলী বিশ্বাস’র ফোনে যোগাযোগ করলে তিনি আলোকিত সকালকে বলেন, ওই এলাকায় কাভার্ডভ্যানে করে গ্যাস বিক্রির কোনো অনুমোদন দেওয়া হয়নি। কাভার্ডভ্যানে করে গ্যাস নিয়ে অন্যত্র বিক্রি করা বেআইনি।

এ বিষয়ে কবিরহাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শরীফুল ইসলাম বলেন, কাভার্ডভ্যানে করে এ রকম গ্যাসের বিক্রি অবৈধ। এ বিষয়ে আমরা আইন আনুগ ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

কবিরহাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মির্জা মো.হাসান বলেন, অবৈধ এ গ্যাস ব্যবসা জড়িতদের কিছুদিন পূর্বে মোবাইল কোর্টেও
মাধ্যমে সাজা দেয়া হয়েছে।এখন এ ব্যবসা চলছে কিনা আমার জানা নাই। তবে হয়ে থাকলে আমরা আবার ব্যবস্থা নেব।

আস/এসআইসু

Facebook Comments