সেমির আশা চূর্ণ টাইগারদের

371

আলোকিত সকাল ডেস্ক

ভারতের বিপক্ষে ৩১৫ রানের লক্ষ্য তারা করতে নেমে নির্ধারিত ৫০ ওভারের আগে সবকয়টি উইকেট হারিয়ে ২৮৬ রান করে বাংলাদেশ। যার ফলে ক্রিকেটের পরাশক্তি ভারতের কাছে ২৮ রানে হেরে ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ থেকে ছিটকে যায় বাংলাদেশ।

ভারতের দেওয়া পাহাড়সম রান তাড়া করতে নেমে টাইগারদের শুরুটা হয় সাদামাটা। কিন্তু দলীয় ৩৯ রানে মোহাম্মদ শামির বলে বোল্ড হয়ে তামিম ইকবাল প্যাভিলিয়নে ফিরে গেলে কিছুটা চাপে পরে বাংলাদেশ। আর সেই চাপ আরো দ্বিগুণ করেন সৌম্য সরকার।

বাজে এক শট খেলে অধিনায়ক বিরাট কোহলির হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরে যান তিনি। আউট হওয়ার আগে করেন ৩৪ বলে ৩৩ রান। এরপর বাংলাদেশের রানের চাকা সচল করেন সাকিব আল হাসান ও মুশফিকুর রহিম। এই দুই ব্যাটসম্যান ভারতীয় বোলাদের উপর কিছুটা তান্ডব চালায়। তবে সৌম্য সরকার এর মত বাজে শর্ট খেলে ফিরে যান মুশফিকুর রহিম। দলীয় ১২১ রানে চাহালের বলে বিরাট কোহলিকে ক্যাচ দেন মুশফিক। আউট হওয়ার আগে ২৩ বলে ২৪ রান করেন তিনি।

মুশফিক আউট হওয়ার পর লিটনকে সাথে ইনিংস মেরামতের কাজ শুরু করে সাকিব আল হাসান। কিন্তু হার্ডিক পান্ডিয়ার বলে দিনেশ কার্তিকে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরে যায় লিটন। এই ব্যাটসম্যান আউট হওয়ার কিছু পরেই লিটনের দেখানো পথেই হাটেন মোসাদ্দেক হোসেন। জাসপ্রিত বুমরাহর বলে ৩ রান করে বোল্ড হয় তিনি। মোসাদ্দেক আউট হলেও বাংলাদেশেকে এক প্রান্ত থেকে আগলিয়ে রাখে সাকিব।

এ দিন দলের প্রয়োজনে একাই লড়ে জান বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার। তবে পান্ডিয়ার গতির পরিবর্তনে পরাস্ত হলেন সাকিব আল হাসান। এক্সট্রা কাভারে সাকিবের সহজ ক্যাচ নেন দিনেশ কার্তিক। আউট হওয়ার আগে সাকিব করেন ৭৪ বলে ৬৬ রান। সাকিবের পরে সাব্বির ও সাইফউদ্দিনে ব্যাটে এগুতে থেকে বাংলাদেশ। তবে ৩৬ রান করে সাব্বির আউট হলে শেষ পর্যন্ত সাইফউদ্দিনের ব্যাটে স্কোর বোর্ড রান যোগ করেন তিনি।

টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৯ উইকেটট হারিয়ে ৩১৪ রান করে ভারত। ব্যাট করতে নেমে শুরুটা শুভ সূচনা করে ভারত। দুই ওপেনার লোকেশ রাহুল ও রোহিত শর্মা দলকে একাই টেনে নিয়ে যায় বড় স্কোরের পথে। কিন্তু তামিম যদি রোহিত শর্মার ব্যাক্তিগত ৯ রানের পর সেই তুলে দেয়া বলটি যদি তালুবন্দি করতে পারতো তাহলে ম্যাচের চিত্র অন্য রকম হতে পারত।

কাঁটার মাস্টার মুস্তাফিজুর রহমানের বলে রোহিত শর্মার ক্যাচ ফেলেছেন তামিম ইকবাল। কিন্তু দৌড়ে গিয়ে বুক সমান বলটা তালুবন্দি করতে ব্যর্থ হন তামিম। তখন ৯ রানে জীবন পায় রোহিত। এরপর টাইগার বোলাদের উপর তাণ্ডব চালিয়ে তুলে নেয় বিশ্বকাপের টানা দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। কিন্তু সেঞ্চুরির পর পরই সৌম্য সরকারের বলে প্যাভিলিয়নে ফিরে যায় শর্মা। আউট হওয়ার আগে করেন ৯২ বলে ১০৪ রান। এরপর আরেক ওপেনার লোকেশ রাহুলকে প্যাভিলিয়নের পথে হাঠান আজকের ম্যাচে একাদশে সুযোগ পাওয়া রুবেল হোসেন।

রাহুল আউট হওয়ার আগে করেন ৯২ বলে ৭৭ রান। দুই উইকেট হারিয়ে ভারতের ইংনিস মেরামতের কাজ শুরু করেন নতুন দুই ব্যাটসম্যান অধিনায়ক বিরাট কোহলি ও ঋষভ পন্ত। তখনই ভারতীয় শিবিরে জোরা আঘাত করে চেপে ধরেন কাঁটার মাস্টার মুস্তাফিজুর রহমান। তার প্রথম শিকার বিরাট কোহলি। আউট হওয়ার আগে করে ২৭ বলে ২৬ রান করেন ভারতীয় এই ব্যাটসম্যান।

এরপর আউট হয় হার্দিক পান্ডিয়া। আর বিপজ্জনক হয়ে ওঠা ঋষভ পন্তকে দলীয় ২৭৭ রানে সাজঘরে পাঠায় অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। পন্ত আউট হওয়ার আগে করে ৪১ বলে ৪৮ রান। শেষের দিকে ধোনির ব্যাটিং নৈপূন্যে কিছুটা এগিয়ে যায় ভারত। তবে শেষ ওভারে ৩৫ রান করেই মোস্তাফিজের বলে সাজ ঘরে ফেরেন ধোনি।

ইংল্যান্ড বিশ্বকাপে স্বপ্নের সেমিফাইলান খেলতে হলে ভারতে বিপক্ষে জয়ের কোন বিকল্প ছিলো না টাইগাদের সামনে। এমন সমীকরণের ম্যাচে টস জিতে আগে ব্যাট করে বাংলাদেশকে ৩১৫ রানের পাহাড়সম টার্গেট দেয় ভারত। এ লক্ষ্য তারা করতে নেমে শুরুটা ধীর গতিতে শুরু করে টাইগাররা। ভালো কিছু করার আবাস দিয়েও ওপেনিংয়ে খেলতে নামা তামিম ইকবাল ও সৌম্য সরকার ইনিংস বড় করতে ব্যার্থ হয়। দলীয় ৭৪ রানেই দুই ওপেনিং ব্যাটসম্যান ফিরে যায় সাজঘরে।

দলের প্রয়োজনে একাই লড়ে জান বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসান। সাকিব যখন প্যাভিলিয়নে ফিরে যায় তখন বাংলাদেশের পরজায় প্রায় নিশ্চত হয়ে যায়। এর আগে ভারতীয় বোলাদের উপর কিছুটা তান্ডব চালায়ি বাজে শর্ট খেলে ফিরে যান মুশফিকুর রহিম। দলীয় ১২১ রানে চাহালের বলে বিরাট কোহলিকে ক্যাচ দেন মুশফিক। আউট হওয়ার আগে ২৩ বলে ২৪ রান করেন তিনি। মুশফিক আউট হওয়ার পর লিটনকে সাথে ইনিংস মেরামতের কাজ শুরু করে সাকিব আল হাসান। কিন্তু হার্ডিক পান্ডিয়ার বলে দিনেশ কার্তিকে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরে যায় লিটন। এই ব্যাটসম্যান আউট হওয়ার কিছু পরেই লিটনের দেখানো পথেই হাটেন মোসাদ্দেক হোসেন। জাসপ্রিত বুমরাহর বলে ৩ রান করে বোল্ড হয় তিনি। মোসাদ্দেক আউট হলেও বাংলাদেশেকে এক প্রান্ত থেকে আগলিয়ে রাখে সাকিব। পান্ডিয়ার গতির পরিবর্তনে পরাস্ত হলেন সাকিব আল হাসান। এক্সট্রা কাভারে সাকিবের সহজ ক্যাচ নেন দিনেশ কার্তিক। আউট হওয়ার আগে সাকিব করেন ৭৪ বলে ৬৬ রান। সাকিবের আউটে বাংলাদেশের সেমিফাইনালের আশাও ক্ষীণ হয়ে গেল অনেকটা।

সংক্ষিপ্ত স্কোর:

বাংলাদেশ: ২৮৬ /১০ (৪৮ ওভার)
টার্গেট:৩১৫

ভারত: ৩১৪/৯ (৫০ ওভার)

বাংলাদেশের একাদশ: তামিম ইকবাল, সৌম্য সরকার, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, লিটন কুমার দাস, মোসাদ্দেক হোসেন, সাব্বির রহমান, মোহাম্মদ সাইফুউদ্দিন, মাশরাফি বিন মর্তুজা, রুবেল হোসেন, মোস্তাফিজুর রহমান

ভারতের একাদশ: লোকেশ রাহুল, রোহিত শর্মা, বিরাট কোহলি, ঋষভ পন্ট, দিনেশ কার্তিক, এমএস ধোনি, হার্ডিক পান্ডিয়া, ভুবনেশ্বর কুমার, মোহাম্মদ শামী, ইউজভেন্দ্র চাহাল, জাসপ্রিত বুমরাহ।

আস/এসআইসু

Facebook Comments